Dental

ঠোঁট কাটা, তালু কাটা কোন অভিশাপ নয়- চিকিৎসায় এটি নিরাময়যোগ্য।

অনেক সময় দেখা যায় বাচ্চা ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরে তাদের ঠোঁটকাটা অথবা তালুকাটা থাকে। যদি ঠোঁটকাটা থাকে তাহলে আমরা এদেরকে Cleft Lip বলি, যদি তালিকাটা থাকে তাহলে Cleft Palate বলি। এগুলো বিভিন্ন ধরনের থাকতে পারে। সামনের দিকে কাটা থাকতে পারে, তালু কাঁটা থাকতে পারে। এটাকে আমরা সাধারনত অভিশাপ হিসেবে দেখি।

বিভিন্ন রকম সমস্যার কারণে হয়। আসলে এটি কোনো অভিশাপ নয়। বিভিন্ন কারণে এটি হতে পারে। আসলে এটা একটা রোগ, এটা একটি জেনেটিক কারণে হয়ে থাকে। এজন্য বাচ্চা হওয়ার সাথে সাথে একজন Genetics কে দেখানো উচিত যে এটা কোন জেনেটিক সমস্যা কিনা। যদি জেনিটিক সমস্যা হয় তাহলে মা-বাবা পরবর্তীতে আর কোন বাচ্চা নিবেনা। যদি জেনেটিক্যাল খোঁজ হয় তাহলে পরবর্তীতে যতগুলো বাচ্চা হবে সবগুলোর এই সমস্যা হতে পারে। এছাড়াও বিভিন্ন কারণে হতে পারে। মা-বাবার ঠোঁটকাটা থাকলে বাচ্চার হতে পারে। এছাড়াও বিভিন্ন কারন থাকতে পারে। যেমন অতিরিক্ত Radiation, Ecessive Vitamin a এবং Psychiatric Drug। এছাড়াও যখন কোন মা বাচ্চা Concept করে এসময় Drug ব্যাবহারের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হয়। এছাড়া দেখা যায় আত্মীয়স্বজনের মধ্যে বিয়ে বেশি হলে সে ক্ষেত্রে এরকম সমস্যা হতে পারে। এখানে একটি সুন্দর একটি বাচ্চার ছবি দেখানো হচ্ছে। বাচ্চাটার ঠোঁটকাটা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় যে চিকিৎসায় উপরের ঠোটটা ঠিক করে দেয়া হয় কিন্তু ভিতরের তালুটার দিকে খেয়াল করা হয় না। এখানে দেখা যাচ্ছে বাচ্চাটার উপরের ঠোটটা ঠিক করা হয়েছে কিন্তু তালুটাটে কোনো কাজ করা হয়নি। এ ক্ষেত্রে দেখা যায় যে উপরের ঠোঁটটা ঠিকই থাকে কিন্তু তালুতে কাজ না করার কারণে দেখা যায় যে তালু ছোট হয়ে যায়। সেসব ক্ষেত্রে অবশ্যই তালুর চিকিৎসা করা উচিত। পরবর্তীতে যখন 20-25 বছরের মধ্যে স্বাভাবিক হয়ে যায় তখন সার্জারি করে তালুর সামনের দিক ঠিক করে আনা হয়। এছাড়া চিকিৎসার বিভিন্ন ধাপ আছে যেগুলোর মাধ্যমে এই ঠোঁট কাঁটা ও তালু কাঁটার চিকিৎসা করা হয়ে থাকে। এছাড়া আরেকটি লক্ষণীয় ব্যাপার হলো বাচ্চাকে কিভাবে খাওয়াবেন ? সাধারণত এ সকল সমস্যায় আক্রান্ত বাচ্চারা মায়ের দুধ চেটে চেটে খেতে পারেনা। সে ক্ষেত্রে দেখা যায় ঠিকমত খাওয়ানো সম্ভব হয়না। বাজারে অনেক ধরনের ফিডার আছে যেগুলো দিয়ে খুব সহজেই বাচ্চাদের দুধ খাওয়ানো যেতে পারে। সর্বোপরি বিভিন্ন ধাপে ধাপে চিকিৎসার মাধ্যমে এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

Previous Post Next Post

You Might Also Like

No Comments

Leave a Reply