থায়রয়েড ডিজিজ (Thyroid disease)

শেয়ার করুন

বর্ণনা

যে সব নালীবিহীন গ্রন্থির ক্ষরণ সরাসরি রক্ত বা লসিকার মাধ্যমে বাহিত হয়ে দূরবর্তী সুনির্দিষ্ট অঙ্গে ক্রিয়াশীল হয়, সে সব গ্রন্থিকে অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি বলে। থায়রয়েড একটি অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি। এটি ঘাড়ের গোড়ায় সামনের দিকে অবস্থিত ছোট একটি গ্রন্থি। এটি থেকে থায়রয়েড হরমোন নিঃসৃত হয়। থায়রয়েড হরমোন দেহের বিভিন্ন কার্যকলাপ যেমন বিপাক, বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ, যৌন লক্ষণ প্রকাশে সহায়তা ও হৃদস্পন্দনের গতি ইত্যাদি নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। থায়রয়েড ডিজিজের কারণে এই হরমোন উৎপাদনের মাত্রা কমে যায়। যার কারণে একজন ব্যক্তি অস্থির বোধ করে এবং তার ওজন বাড়ে বা কমে যায়। পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের বিশেষ করে গর্ভাবস্থা বা মেনোপজের পর এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। থায়রয়েড ডিজিজের মধ্যে রয়েছে হ্যাশিমোতো’স থায়রইয়েডাইটিস, হাইপারথায়রয়েডিজম বা হাইপোথায়রয়েডিজম ইত্যাদি। এই রোগ সকল বয়সের ব্যক্তিদের হতে পারে।

কারণ

 এই রোগ হওয়ার কারণগুলো হলোঃ

  • থায়রয়েডাইটিস (Thyroiditis): এই অবস্থায় থায়রয়েড গ্রন্থিতে প্রদাহ বা ইনফ্লামেশন হয়। এই কারণে হরমোনের উৎপাদন মাত্রা কমে যায়।
  • হ্যাশিমোতো’স থায়রইয়েডাইটিস (Hashimoto's thyroiditis): এটি ইমিউন সিস্টেমের একটি ত্রুটিজনিত রোগ যা বংশগত কারণে হয়ে থাকে।
  • পোস্টপার্টাম থায়রইয়েডাইটিস (Postpartum thyroiditis): সন্তান জন্মদানের পর ৫ শতাংশ মহিলার এই রোগ হয়ে থাকে। এটি একটি সাময়িক সমস্যা।
  • আয়োডিনের অভাব (Iodine Deficiency): এই সমস্যাটি সারাবিশ্বে খুব প্রকটভাবে দেখা যায়। থায়রয়েড গ্রন্থি হতে হরমোন নিঃসরণের জন্য আয়োডিনের ভূমিকা অনেক।
  • থায়রয়েড গ্রন্থি সঠিক ভাবে কাজ না করা (A non-functioning thyroid gland): ৪০০০ নজাতকদের মধ্যে অন্তত ১ জনের মধ্যে এই সমস্যা দেখা যায়। সঠিক সময়ে এর চিকিৎসা না করা হলে শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশ বাধাপ্রাপ্ত হয়।

লক্ষণ

এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে চিকিৎসকেরা নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি চিহ্নিত করে থাকেন:

ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়

যে যে বিষয়ের কারণে এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায় সেগুলো হলোঃ

  • পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা ৬ থেকে ৮ গুণ বেশি।
  • যাদের বয়স ৫০ বা তার বেশি তাদের এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি।
  • পরিবারের অন্য কোনো সদস্য বা নিজের পূর্বে এই রোগ হয়ে থাকলে পুনরায় হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।
  • গর্ভাবস্থা বা সন্তান জন্মদানের পরবর্তী এক বছরে মহিলাদের এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।
  • ধূমপায়ীদের এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি।
  • মানসিক চাপ বা শারীরিক আঘাতের কারণে থায়রয়েড ডিজিজ হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

যারা ঝুঁকির মধ্যে আছে

লিঙ্গঃ পুরুষদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ৩ গুণ কম। মহিলাদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে।

জাতিঃ শ্বেতাঙ্গ, কৃষ্ণাঙ্গ ও অন্যান্য জাতিদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে। হিস্প্যানিকদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১ গুণ কম।

সাধারণ জিজ্ঞাসা

উত্তরঃ যে থায়রয়েড ডিজিজগুলো মহিলাদের বেশি হয়ে থাকে সেগুলো হলো:

  • হাইপোথায়রয়েডিজম (Hypothyroidism)।
  • হাইপারথায়রয়েডিজম (Hyperthyroidism)।
  • থায়রয়েডাইটিস, বিশেষ করে পোস্টপার্টাম থায়রয়েডাইটিস (Thyroiditis, especially postpartum thyroiditis)।
  • গয়টার (Goiter)।
  • থায়রয়েড নডিউলস (Thyroid nodules)।
  • থায়রয়েড ক্যান্সার (Thyroid cancer)।

উত্তরঃ হাইপারথায়রয়েডিজম ও হাইপোথায়রয়েডিজমের কারণে অভ্যুলেশনের জন্য প্রয়োজনীয় হরমোন উৎপাদন বাধাগ্রস্ত হয়। এর ফলে সন্তান গর্ভধারণে সমস্যা হয়ে থাকে। হাইপোথায়রয়েডিজমের কারণে প্রচুর পরিমাণে প্রোল্যাক্টিন উৎপাদিত হয়ে অভ্যুলেশনে সমস্যা সৃষ্টি করে। থায়রয়েডের সমস্যাগুলোর কারণে মাসিকচক্রের উপরও বিরূপ প্রভাব পড়ে। এর কারণে মাসিকের সময় অনেক রক্তপাত হয় বা মাসিক অনিয়মিত হয়ে পড়ে। কখনও কখনও কয়েক মাসের জন্য মাসিক বন্ধ থাকে। এই সমস্যাকে অ্যামেনোরিয়া বলে।

হেলথ টিপস্‌

থায়রয়েড ডিজিজ প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। তবে কিছু ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে এর তীব্রতা নিয়ন্ত্রণ করা যায়ঃ

  • অতিরিক্ত পরিমাণে আয়োডিন গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে।
  • রেডিয়েশনের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকতে হবে।
  • ধূমপান ত্যাগ করতে হবে।
  • পরিবারের কোন সদস্যের এই রোগ থাকলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।

বিশেষজ্ঞ ডাক্তার

ডা: তানজিনা হোসেন

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

প্রফেসর ডাঃমোঃ হাফিজুর রহমান

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

ডা: এম.এ হাছানাত

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

ডা: শাহাজাদা সেলিম

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism), ডায়াবেটোলজিষ্ট ( Diabetologist)

প্রফেসর ডাঃ মোঃ ফারুক পাঠান

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

এসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ডাঃ শাহাজাদা সেলিম

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

এমবিবিএস, এমডি(এন্ডোক্রাইনোলজী এন্ড মেটাবলিজম), এমএসিই (ইউএসএ)এন্ডোক্রাইনোলজী বিভাগ

ডা: ইন্দ্রজিত প্রসাদ

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)

ডাঃ শাহাজাদা সেলিম

এন্ডোক্রাইনোলজি এন্ড মেটাবলিজম ( হরমোন) ( Endocrinology & Metabolism)