নাকে বাহ্যিক বস্তু (Foreign body in the nose)

শেয়ার করুন

বর্ণনা

নাকে বাহ্যিক কোনো বস্তু প্রবেশ করলে তার ফলে বিশেষ কোনো ক্ষতি হয় না। নাকে কোনো বস্তু প্রবেশ করার ফলে যদি অন্য কোনো শারীরিক সমস্যা না হয় তবে সেটি দেরিতে অপসারণ করলেও ক্ষতির সম্ভাবনা নেই। তবে কোনো বস্তু চোখে প্রবেশ করলে যতো দ্রুত সম্ভব সাবধানতার সাথে অপসারণ করা উচিৎ। কিছু ক্ষেত্রে নাকে প্রবেশ করা বস্তু সরে গিয়ে মুখে চলে আসতে পারে। এর ফলে সেটি গিলে ফেলা বা নিঃশ্বাসের মাধ্যমে ফুসফুসে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এর ফলে নিঃশ্বাস বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

শিশুরা কৌতূহল বশত নাকের মধ্যে খাবার, বীজ ছোট খেলনা, রাবার, তুলা প্রভৃতি বস্তু প্রবেশ করাতে পারে।শিশুদের নাকের মধ্যে এ ধরনের বস্তু প্রবেশ করলে অনেক সময় তা অন্যদের বুঝতে সমস্যা হতে পারে। শিশুদের এই ধরনের সমস্যা হলে তাদের চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন।


কারণ

বিভিন্ন কারণে নাকে বাহ্যিক বস্তু প্রবেশ করতে পারে। শিশুদের নাকে কোনো বস্তু প্রবেশ করলে তাদের সে ব্যাপারে প্রশ্ন জিজ্ঞাস করার সময় সাবধান হতে হবে। তা নাহলে শাস্তি পাওয়া ভয়ে তারা কানে বস্তু প্রবেশ করার কথা অস্বীকার করতে পারে। এর ফলে বস্তুটি খুজেঁ পেতে দেরি হতে পারে এবং এর দ্বারা সৃষ্ট সমস্যাও বাড়তে পারে।

আঘাত লাগার ফলেও অনেক সময় নাকে বাহ্যিক কোনো বস্তু প্রবেশ করতে পারে। তাই পড়ে গেলে বা মুখে আঘাত লাগলে নাকে কিছু প্রবেশ করেছে কিনা তা ভালোভাবে দেখে নিতে হবে।  


লক্ষণ

এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে চিকিৎসকেরা নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি চিহ্নিত করে থাকেন:

যারা ঝুঁকির মধ্যে আছে

লিঙ্গ: পুরুষ ও নারী উভয়ের মধ্যে এই রোগ নির্ণয় হওয়ার গড়পড়তা সম্ভাবনা থাকে।

জাতি:কৃষ্ণাঙ্গ ও হিস্প্যানিকদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয় হওয়ার গড়পড়তা সম্ভাবনা থাকে।শ্বেতাঙ্গ ও অন্যান্য জাতির মধ্যে এই রোগ নির্ণয় হওয়ার সম্ভাবনা ১ গুণ কম।


সাধারণ জিজ্ঞাসা


কোনো কিছু মাধ্যমে রক্তে ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করলেই এনডোকার্ডাইটিস হওয়ার ঝুঁকি থাকে। তবে মূলত পূর্বে থেকে হৃৎপিণ্ডের কোনো সমস্যা থাকলে এই ঝুকিঁর সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়।  

ফুসফুস শ্বাসনালীর সাথে সংযুক্ত থাকে। ফলে নাকের মধ্যে দিয়ে কোনো বস্তু ফুসফুসে প্রবেশ করতে পারে । শিশুদের এই সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা থাকলে দ্রুত তাদের চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে হবে। সমস্যাটি কিছু ক্ষেত্রে জীবননাশী হয়ে উঠতে পারে। 

  • খাদ্য (বিন ও বীজ)।
  • স্পঞ্জের টুকরা।
  • ইরেজার।
  • ছোট খেলনা।
  • কয়েন বা গুটি।
  • পাথর বা নুড়ি।
  • ছোট ব্যাটারি বা চুম্বক।
  • পোকা।


হেলথ টিপস্‌

নাকে কোনো বস্তু প্রবেশ করলে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি অনুসরণ করুন-

  • নাকে কট্‌ন বাড বা অন্য কোনো কিছু প্রবেশ করাবেন না। এগুলি প্রবেশের ফলে চাপ লেগে নাকে থাকা বস্তুটি আরও ভিতরে চলে যেতে পারে।
  • নাকের ভিতরে কোনো কিছু লেগে থাকলে চিমটা দিয়ে তা বের করার চেষ্টা করবেন না।
  • নাকের ভিতরকার বস্তুটি ভালোভাবে দেখা না গেলে বা ভালোভাবে কোনো কিছু দিয়ে ধরা না গেলে সেটি বের করার চেষ্টা করবেন না। এর ফলে বস্তুটি আরও ভেতরে চলে যেতে পারে বা অন্য কোনো ক্ষতি হতে পারে।
  • নাকে কোনো বস্তু প্রবেশের পর মুখ দিয়ে নিঃশ্বাস নিন। এ সময় জোরে নিঃশ্বাস নেওয়া উচিৎ নয়। এর ফলেও নাকে থাকা বস্তুটি আরও ভেতরে চলে যেতে পারে
  • যে নাসা রন্ধ্রে বস্তু প্রবেশ করেনি সেটি চেপে ধরুন। এবার ধীরে ধীরে নাক থেকে বাতাস বের করতে হবে। এর ফলে ভিতরের বস্তুটি বাইরে বেরিয়ে আসতে পারে। তবে এক্ষেত্রে জোরে এ বার বার নাক ঝাড়া যাবেনা।

এই পদ্ধতিতে কাজ নাহলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে।


বিশেষজ্ঞ ডাক্তার

প্রফেসর ডাঃ নাজমুল ইসলাম

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: মো: মনজুরুল আলম

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: মো: আবুল হাসনাত জোয়ার্দার

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: প্রাণ গোপাল দত্ত

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: খোরশেদ মজুমদার

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: মো: আবু হানিফ

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: নাসিমা আক্তার

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)

প্রফেসর ডা: এম. আলমগীর চৌধুরী

অটোল্যারিঙ্গোলজি ( নাক, কান, গলা) ( Otolaryngology)