বার্ন/পোড়া (Burn)

শেয়ার করুন

বর্ণনা

তাপ, বিদ্যুৎ, রাসায়নিক পদার্থ, ঘর্ষণ বা বিকিরণের কারণে ত্বক পুড়ে যেতে পারে। চামড়ার বাইরের অংশ পুড়ে যাওয়াকে সুপারফিসিয়াল (superficial ) বা First Degree Burn  বলে। পোড়ার কারণে চামড়ার গভীর স্তর প্রভাবিত হলে তাকে Second Degree Burn বলে । চামড়ার পুরো স্তর পুড়ে যাওয়াকে Third Degree Burn বলে। যখন পুড়ে যাওয়ার প্রভাব চামড়ার পুরো স্তর, মাংশপেশী বা হাড়ে পৌঁছে তখন তাকে Fourth Degree Burn বলে। 

কারণ

সাধারণত নিম্নলিখিত বিষয়গুলির কারণে এই সমস্যা হয়ে থাকে:
(ক) আগুন।
(খ) গরম তরল বা বাষ্প।
(গ) গরম ধাতু, কাঁট বা অন্যান্য বস্তু।
(ঘ) বৈদ্যুতিক দূর্ঘটনা।
(ঙ) ক্যান্সার চিকিৎসার সময় এক্স-রে এবং রেডিয়েশন থেরাপি।
(চ) রাসায়নিক পদার্থ যেমন এসিড, ক্ষারজাতীয় বস্তু, রং পাতলা করার পদার্থ বা পেট্রোল।

লক্ষণ

এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে চিকিৎসকেরা নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি চিহ্নিত করে থাকেন:

চিকিৎসা

 চিকিৎসকেরা এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের নিম্নলিখিত ঔষধগুলি গ্রহণ করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন: 

cefixime trihydrate flucloxacillin
hydrocortisone acetate, topical ibuprofen
ketorolac naproxen
paracetamol silver sulphadiazine, topical

চিকিৎসকেরা এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের নিম্নলিখিত টেস্টগুলি করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন:

উন্ড ম্যানেজমেন্ট (Wound care management)
ফার্স্ট এইড (First Aid)

ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়

যে যে বিষয়গুলির কারলে পোড়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় সেগুলো হলো:

(ক) অল্প বয়সঃ ৪ বছরের কম বয়সের শিশুরা সবচেয়ে বেশি এই সমস্যার সম্মুখীন হয়। উদাসীন বাবা মায়ের শিশুদের পুড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।

(খ) নেশাজাত দ্রব্যের ব্যবহারঃ নেশাজাত দ্রব্যের ব্যবহারের কারণে পুড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়।

(গ) লিঙ্গঃ মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের এই সমস্যায় আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা বেশি।

(ঘ) ধূমপানঃ ধুমপানের কারণে পুড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

(ঙ) প্রখর সূর্য্তাপঃ সূর্যের তাপ বেড়ে গেলে পোড়ার ঘটনা ঘটতে পারে।

যারা ঝুঁকির মধ্যে আছে

লিঙ্গঃ পুরুষদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে। মহিলাদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১ গুণ কম।

জাতিঃ শ্বেতাঙ্গদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে। কৃষ্ণাঙ্গদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১ গুণ কম। হিস্প্যানিকদের মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের সম্ভাবনা ১ গুণ কম। অন্যান্য জাতির  মধ্যে এই রোগ নির্ণয়ের গড়পড়তা সম্ভাবনা রয়েছে।

সাধারণ জিজ্ঞাসা

উত্তরঃ সামান্য পোড়ার ক্ষেত্রে পুড়ে যাওয়া স্থান পরিষ্কার ও শুকনো রাখতে হবে। এইক্ষেত্রে অল্প বয়সীরা দ্রুত আরোগ্য লাভ করে থাকে, কিন্তু বৃদ্ধ বয়সের ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে অনেক বেশি সময় লাগে। কনুই, হাটুঁ, শরীরের নিচের অংশ পুড়ে গেলে পোড়া স্থানের যন্ত্রণা কমানোর জন্য মলম বা তেল জাতীয় ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। পুড়ে যাওয়ার মাত্রা বেশী হলে যতো দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে যেতে হবে।

হেলথ টিপস্‌

শরীরের কোনো স্থান পুড়ে গেলে নিম্নলিখিত বিষয়গুলি অনুসরণ করুন:

(ক) পুড়ে যাওয়া স্থান ঠাণ্ডা করা: পুড়ে যাওয়া স্থানে ১৫-৩০ মিনিট ধরে পানি ঢালতে হবে। বরফ বা বরফের পানি ঢালা ঠিক নয়।

(খ) ক্ষত স্থান পরিষ্কার করা: কোমল সাবান এবং পানি দিয়ে ক্ষত স্থান পরিষ্কার করতে হবে। ক্ষত স্থানে কোন কিছু লেগে থাকলে সেগুলো আলতোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। যদি ফোসকা অক্ষত থাকে তাহলে সেগুলোকে গেলে দেওয়া ঠিক নয়।

(গ) লোশন এবং ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার: ক্ষত স্থানের শুষ্কতা দূর করতে লোশন এবং ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। তাছাড়া, ক্ষত স্থানে চেতনা নাশক ক্রিম (anesthetic cream) ব্যবহার করা যেতে পারে।

(ঘ) ক্ষত স্থান কাপড় দিয়ে বাঁধা: ক্ষত স্থানকে একটা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে ঢিলা করে বাঁধতে হবে।